June 30, 2022
নির্বাচনের নামে কমেডির কী দরকার সংসদে হারুন

নির্বাচনের নামে কমেডির কী দরকার সংসদে হারুন

নির্বাচনের নামে কমেডির কী দরকার সংসদে হারুন, ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে বিপুল সংখ্যক

প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী, আপনার ভিশন ২০৪১ সাল পর্যন্ত। কি দরকার নির্বাচনের নামে এমন উপহাস,

হানাহানি, খুন, সংঘাত। তোমার কি দরকার? ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে এক

বিশেষ আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এ প্রশ্ন করেন হারুনুর রশীদ। এ সময় সংসদ

নেতা শেখ হাসিনা অধিবেশন কক্ষে উপস্থিত ছিলেন।জনপ্রিয় একটি গানের উদ্ধৃতি দিয়ে বক্তব্য শুরু করেন

হারুন। বললেন, ‘কী দেখব, কী দেখব? আমি কি শুনছি? কী ভাবব, কী ভাবব? কী বলব, কী বলছি?

৫০ বছর পরও আমি স্বাধীনতা খুঁজছি। ‘

আরও নতুন নিউস পেতে আমাদের সাইট:tenicalbn.xyz

নির্বাচনের নামে কমেডির কী দরকার সংসদে হারুন

হারুনুর রশীদ বলেন, সংবিধানে বলা আছে স্থানীয় প্রতিনিধিরা নির্বাচিত হবেন। চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে এ পর্যন্ত তিন থেকে চার শতাধিক চেয়ারম্যান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রশ্ন, তাদের কে বেছে নিলেন? কিভাবে তারা তাদের দায়িত্ব পালন করবে?স্পিকারের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে হারুন বলেন, “আমি আপনার কাছে জানতে চাই, যারা আজ বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন, নির্বাচন কমিশন যাদেরকে নির্বাচিত ঘোষণা করেছে তাদেরকে আমি কি বলব। অনির্বাচিত, নাকি নির্বাচিত? তাদের অবশ্যই থাকতে হবে। বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন, “দলের মহাসচিব তারিক আল-হাশিমি বলেছেন।হারুন অভিযোগ করেন, পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে তার এলাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থীদের কার্যালয় উড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কী কাজ করে? তাদের দায়িত্ব কি?

এমপি হারুন বলেন নির্বাচন কমিশনকে

সারাক্ষণ গালিগালাজ করা হচ্ছে। তারা ব্যর্থতার কথা বলে। সংবিধানে বলা আছে, নির্বাহী বিভাগ নির্বাচন কমিশনকে সব ধরনের সহায়তা দেবে। নির্বাহী শাখার সহযোগিতা ছাড়া অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন কীভাবে হবে?বিএনপির এই সংসদ সদস্য বলেন, ৫০ বছরেও আলোচনার মাধ্যমে বাংলাদেশের রাজনৈতিক সংকটের সমাধান হয়নি। একপক্ষের পরাজয়ের মধ্য দিয়ে জয় পেয়েছে অন্য দল। ভবিষ্যতে কী হবে তা তিনি জানেন না। প্রকৃত অর্থে জাতি আজ এক মহা সংকটে।হারুন বলেন, “আমরা বিশ্বাস করি নির্বাচনী প্রক্রিয়া পরিবর্তনের এটাই একমাত্র উপায়।” অবশ্যই নির্বাচনের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক সমাজ গড়ে তুলতে হবে। তবে এক্ষেত্রে আমাদের বড় ঘাটতি রয়েছে। এ অবস্থা থেকে বের হতে হবে। “অসুস্থ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানান হারুন। তিনি বলেন, আমি সংসদ নেতার সঙ্গে বহুবার কথা বলেছি।

আমি অনুরোধ করেছিলাম আপনি দেখেন

তার শারীরিক অবস্থা, তাকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিয়ে যেতে দিতে আপনার অসুবিধা কোথায়? আপনি তাকে বিদেশে চিকিৎসার সুযোগ দিন। আপনি সম্মানিত হবে. এটা তার বয়স, তার অবস্থা বিবেচনা করা উচিত. “হারুন বলেন, দেশ স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্ণ করেছে। চিন্তা করছি. রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান, নির্বাচন কমিশন, আইন বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের ওপর থেকে জনগণের আস্থা হারিয়েছে। ‘বিএনপির এই সংসদ সদস্য আরও বলেন, স্বাধীনতার প্রেক্ষাপটে সবচেয়ে বেশি অবদান বঙ্গবন্ধুর। অস্বীকার করার উপায় নেই। রাষ্ট্রপতি বলেন, ২৬ মার্চ ভোরে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের কোনো দলিলপত্রে তিনি (হারুন) তা দেখতে পাননি। সাংসদ আরও বলেন, “বেগম মুজিব আরও লিখেছিলেন যে ২৫ মার্চ পাক-হানাদার বাহিনী গণহত্যা চালায়। সেই রাত ১২টায় বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করা হয়। এ নিয়ে বিতর্কের দরকার নেই। মুজিবকে ছোট বা বড় করা যাবে না।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.