June 30, 2022
ভগ্নিপতির সাথে অবৈধ সম্পর্কের পরিণতি

ভগ্নিপতির সাথে অবৈধ সম্পর্কের পরিণতি

ভগ্নিপতির সাথে অবৈধ সম্পর্কের পরিণতি, যশোরের মণিরামপুরে হত্যার রহস্য উদঘাটন হয়েছে।

আকবর আলীকে নিজ বাড়িতে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। গরু-ছাগল জবাইয়ের ছুরি দিয়ে স্ত্রীকে

গলা কেটে হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে সিআইডি। হালিমা বেগম জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন,

বোনের সঙ্গে অনৈতিক কর্মকাণ্ড দেখে স্বামীকে হত্যা করেছেন।বুধবার তার বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে অতিরিক্ত চিফ

জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের বিচারক মারুফ আহমেদ তাকে রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দেন। অভিযুক্ত

হালিমা বেগম মণিরামপুর উপজেলার কৃষ্ণবাটি গ্রামের মৃত আকবর আলী গাজীর স্ত্রী। হালিমা বেগম জানান,

তার নিজের বোন সালেহা খাতুনের সঙ্গে তার স্বামী আকবর আলীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তার সূত্রে

জানা যায়, ২০১৬ সালের মাঝামাঝি তার বোনের সঙ্গে তার স্বামী আকবর আলীর পরকীয়া হয়।

আরও নতুন নিউস পেতে আমাদের সাইট:tenicalbn.xyz

ভগ্নিপতির সাথে অবৈধ সম্পর্কের পরিণতি

এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে একগামীতা এমনকি দুজনের মধ্যে মারামারিও হয়।এক পর্যায়ে হালিমা তার স্বামীকে হত্যার পরিকল্পনা করে। এর জের ধরে একই বছরের ১৬ নভেম্বর রাতে বাড়িতে ঘুমিয়ে ছিলেন স্বামী আকবর আলী। এ সময় স্বামীকে ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করে।এরপর তিনি প্রতিবেশী আব্দুল হাই, তার স্ত্রী পারভিনা খাতুন, জুলেখা বেগম ও আনিসুর রহমানের বিরুদ্ধে মণিরামপুর থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলাটি প্রথমে তদন্ত করেন মণিরামপুর থানার এসআই আইনউদ্দিন। এ সময় পূর্ববিরোধের জের ধরে প্রতিবেশী পুলিশকে ইন্সটল করে। পরে মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য সিআইডি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।মামলায় নিহতের স্ত্রী হালিমা বেগমকে আটকের পর পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে সোপর্দ করেন সিআইডি পুলিশের পরিদর্শক সুব্রত কুমার পাল। আসামি হালিমা বেগমের দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বিচারক।

রিমান্ড শেষে বুধবার আদালতে সাক্ষ্য

দেন হালিমা বেগম।এদিকে মামলার বাদী নিহতের ছেলে মিন্টু হোসেন বাদী হয়ে দায়ের করা মামলায় বলেন, প্রতিবেশী আব্দুল হাই, তার স্ত্রী পারভীন খাতুন, সোবহান দফতরের মেয়ে জুলেখা বেগম ও বাবর আলীর ছেলে আনিসুর রহমানের মধ্যে পারিবারিক কলহ ছিল। আসামি মিন্টুর মা হালিমা বেগম ও তার চাচা মিনাজ কাশেম, চাচাতো ভাই নুর নবী ও রাজমিস্ত্রি শরিফুলের বিরুদ্ধে নন-এফআইআর করেন।মামলা নিষ্পত্তির জন্য তিনি তাদের কাছে ৩০ হাজার টাকা দাবি করেন। একপর্যায়ে ওই সময় তাদের কাছে ওই পরিমাণ টাকা না থাকায় আসামিরা মিন্টুর চাচাকে বাধ্য করে ১০ টাকার নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করতে। ৩০০ সেইসাথে তাদের হত্যা ও আহত করার হুমকি দেয়।২০১৬ সালের ১৬ নভেম্বর রাতে বিপিএল ম্যাচ দেখে ঘুমিয়ে পড়েন। গভীর রাত দেড়টার দিকে তিনি চিৎকার শুনে বাসা থেকে বেরিয়ে এসে তার পিতা আকবর আলী গাজীর শিরচ্ছেদ করা লাশ দেখতে পান।

বাদী বাদী মিন্টু গাজী জানায়

এজাহার নামে আসামিসহ অজ্ঞাতনামা কয়েকজন তার মায়ের মুখ ওড়না দিয়ে বেঁধে তার বাবা আকবর আলী গাজীকে প্রথমে বালিশ দিয়ে ও পরে গলা কেটে হত্যা করে।দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার সাথে রাজধানী ঢাকার সাথে সংযোগকারী নৌপথের অন্যতম বাংলাবাজার এবং শিমুলিয়া ঘাটে অসংখ্য খাবার হোটেল রয়েছে। গরম ভাতের সঙ্গে ইলিশ ভাজা এ রুটের যাত্রীদের প্রিয় খাবার। তবে কয়েক বছর ধরে অসাধু ব্যবসায়ীদের ফাঁদে পড়ে ইলিশের নামে সার্ডিন ও চৌকা মাছ খাচ্ছেন যাত্রীরা।ইলিশের নামে অন্য মাছ খেলেও ইলিশের মতোই দাম রাখেন তিনি। কিনলে তা একটু কমানো গেলেও ইলিশ খাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। তবে মুখে দেওয়ার পর ইলিশের স্বাদ না পেয়ে বিষয়টি ধরতে পারেননি তিনি। অনেকে প্রতারণা বুঝতে পেরে নীরবে হাবুডুবু খাচ্ছেন, প্রতিবাদ করতে গিয়ে অপমানিত হচ্ছেন অনেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.